হারের পরে অজুহাত হাজির লাল হলুদ কোচের

স্পোর্টস ডেস্ক, এনএফবিঃ

গত দুইবারের ছবিটা অন্তত ২০২২-২৩ আইএসএল প্রথম ম্যাচে বদলাল না। কেরালা ব্লাস্টর্সের বিরুদ্ধে প্রথম ম্যাচেই ৩-১ গোলে হারলো। লাল হলুদ ব্রিগেড প্রথমার্ধে লড়াই চালাল। দ্বিতীয়ার্ধে সেই লড়াই থেকে কয়েক যোজন দূরে সরে গেল ইস্টবেঙ্গল। শুধু রক্ষণ সামলে কি আর ফুটবল হয়! ব্রিটিশ কোচ স্টিফেন কনস্টানটাইনের দল গঠন নিয়ে প্রথম দিনই থাকল প্রশ্ন। অতি রক্ষণাত্মক স্ট্র্যাটেজি নিয়ে দল সাজালেন কনস্টানটাইন। আর তারই মাসুল গুনতে হল লাল-হলুদকে। তবে হারলেও অজুহাত দিতে ভুললেন না লাল হলুদ কোচ। ম্যাচের শেষে তিনি জানাচ্ছেন, তরুণদের নিয়ে গড়া দল নিয়ে ৬-৭ সপ্তাহ অনুশীলন করতে পেরেছি আমরা। তবে এটাই সত্যি ঘটনা। প্রথমার্ধে আমরা সুযোগ পেয়েছি। দ্বিতীয়ার্ধে আমাদের মনসংযোগে ঘাটতি ছিল। লুনা যখন গোলটা করে, তখন ওকে ওই জায়গায় পৌঁছতে দেওয়া ঠিক হয়নি। ওর সঙ্গে আমাদের কারও লেগে থাকা উচিত ছিল। আমাদের তো ভুল হয়েছেই। এর মধ্যেও কিছু ইতিবাচক ব্যাপার আছে। কেরালা ব্লাস্টার্স গতবার লিগে চতুর্থ স্থানে শেষ করেছিল। ওদের সেই দলই খেলছে, সেই কোচেরই তত্ত্বাবধানে। প্রথমার্ধে আমরা ওদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়েছি। দ্বিতীয়ার্ধে ছন্দ হারাই। পরের দুটো গোলই আমরা নিজেদের দোষে খেয়েছি। এই ধরনের ম্যাচে মনসংযোগ নষ্ট হলে সফল হওয়া কঠিন।’

এরপরই তিনি জানাচ্ছেন,শারীরিক সক্ষমতার থেকেও বেশি যেটার অভাব হয়েছে, তা হল ম্যাচ প্র্যাকটিস। একটা দল যত ম্যাচ খেলে, তত তারা ম্যাচের উপযোগী হয়ে ওঠে। মুম্বই সিটি এফসি-র বিরুদ্ধে ডুরান্ড কাপের শেষ ম্যাচে সেটা প্রমাণ হয়ে গিয়েছে। ওটাই এ মরশুমে আমাদের সবচেয়ে বড় পরীক্ষা ছিল এবং আমরা ভালই খেলেছিলাম। ঠিকঠাক পরিবর্তন করে খেলোয়াড় নামিয়েছিলাম। হার মোটেই ভাল জিনিস নয়। তবে এই হার থেকে শিক্ষা নিতে হবে আমাদের। সামনে আমাদের ম্যাচ এফসি গোয়ার বিরুদ্ধে, কলকাতায়। এখন সেই ম্যাচ নিয়ে ভাবনা-চিন্তা শুরু করতে হবে আমাদের।’

তবে দুই বছর পরে আইএসএলে দর্শক ফিরেছে আর কেরালার দর্শকদের ভালোবাসায় মুগ্ধ স্টিফেন। তার কথায়, কেরালার সমর্থকেরা আজ আমাদের যে ভাবে অভ্যর্থনা জানিয়েছে, তা অসাধারণ, খুবই ভাল লেগেছে আমার। দু’বছর পরে সমর্থকদের সামনে মাঠে নামার অভিজ্ঞতাটা অবশ্যই দুর্দান্ত। এই পরিবেশ অভাবনীয়। ভারতীয় ফুটবলের জনপ্রিয়তা যে এখনও ছিটেফোঁটা কমেনি, তা এ থেকেই বোঝা যায়। এ থেকে কতটা ইতিবাচক বের করা যায়, সেটাই প্রশ্ন। তবে আমার মনে হয় ভারতের নিয়মিত এশিয়ান কাপের মূলপর্বে যোগ্যতা অর্জন করা উচিত এবং ভবিষ্যতে ভারতকে বিশ্বকাপেই বা কেন দেখা যাবে না?’

এদিন মাঠে হাজির ছিলেন অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন সভাপতি কল্যাণ চৌবে। আগামী বুধবার কলকাতার যুবভারতীতে এফসি গোয়ার মুখোমুখি হবে ইস্টবেঙ্গল এফসি।

নিউজ ফ্রন্ট বাংলার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।