জল্পেশ মন্দিরের গর্ভগৃহে প্রবেশ নিষিদ্ধ পুণ্যার্থীদের

এনএফবি,জলপাইগুড়িঃ

জল্পেশ মন্দিরের গর্ভগৃহে পুণ্যার্থীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। বিকল্প ব্যবস্থার মাধ্যমে জল ঢালার ব্যাবস্থা করার নির্দেশও দিলেন জেলা প্রশাসনকে।

শ্রাবণ মাসের আগামী দুই রবিবার ও সোমবার জল্পেশ মন্দিরের গর্ভগৃহে পুণ্যার্থীরা ঢুকতে পারবেন না বলে নির্দেশ দিলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। হাইকোর্টের নির্দেশে জল ঢালতে হবে মন্দিরের বাইরে থেকে।

বিচারপতির নির্দেশ মন্দিরের বাইরে তিনটি জায়গায় জল ঢালতে হবে, সেই জল চ্যানেলের মাধ্যমে গর্ভগৃহে পৌঁছবে।

শুক্রবার হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিটে জল্পেশ মন্দিরের গর্ভগৃহে ঢোকার পথ অপ্রশস্ত এবং শ্রাবণ মাসের সোমবার প্রবল ভিড় হচ্ছে, পুণ্যার্থীরা অসুস্থ হচ্ছে জানিয়ে মামলা দায়ের করেছিলেন জলপাইগুড়ির এক বাসিন্দা। মামলা গ্রহণ করা হয়।

শুক্রবার বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় মন্দির কমিটির সম্পাদক এবং জেলা প্রশাসনের প্রতিনিধিদের তলব করে মামলা শোনেন।

গত রবিবার রাতে জল্পেশে যাওয়ার পথে পিকআপ ভ্যানে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ১০ জন পুণ্যার্থীর মৃত্যু হয়েছিল। মন্দিরে ঢোকার পথেও ভিড়ের চাপে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন অনেকে।

রায়ে যা বলা হয়েছেঃ

১) শ্রাবণ মাসের আগামী দুই রবিবার ও সোমবার জল্পেশ মন্দিরের গর্ভগৃহে পুণ্যার্থীরা প্রবেশ করতে পারবেনা।

২) মন্দির প্রাঙ্গণে এসে বিশেষ ব্যবস্থার মাধ্যমে জল ঢালবে।

৩) এই দুই দিন কোনও রকম টিকিট বিক্রি করা যাবেনা।

৪) প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে প্রশাসনকে কড়া নির্দেশ।

বিক্রমাদিত্য ঘোষ, সরকারি আইনজীবী। নিজস্ব চিত্র

সরকারি আইনজীবী বিক্রমাদিত্য ঘোষ জানিয়েছেন এক পুণ্যার্থী জল্পেশ মন্দিরে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি মামলা করেছিলেন। তার মামলার শুনানিতে জাস্টিস অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছেন আগামী দুই রবিবার ও সোমবার জল্পেশ মন্দিরের গর্ভগৃহে পুণ্যার্থীরা প্রবেশ করতে পারবেনা। যেই সকল পুণ্যার্থীরা আসবেন তারা বাইরে একটি বিশেষ ব্যবস্থার মাধ্যমে জল ঢালবে। এই দুই দিন কোনও টিকিট বিক্রি করা যাবেনা। এরজন্য প্রয়োজনীয় যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গিরিন্দ্রনাথ দেব, সম্পাদক জল্পেশ মন্দির কমিটি। নিজস্ব চিত্র

আদালতের রায়কে স্বাগত জানিয়ে মন্দির কমিটির সম্পাদক গিরিন্দ্রনাথ দেব জানিয়েছেন শ্রাবণ মাসের আগামী দুই রবিবার ও সোমবারের জন্য এই নির্দেশ দিয়েছেন। পুণ্যার্থীরা রবিবার রাত দুটা থেকে সোমবার বিকেল ৪ টার মধ্যে মন্দিরে এসে জল ঢালতে পারবে। কিন্তু মন্দিরের ভিতরে প্রবেশ করতে পারবেনা। মন্দির চালাতে বিভিন্ন খাত মিলিয়ে বছরে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ লক্ষ টাকা খরচ হয়। পুণ্যার্থীরা যেই টিকিট কেটে মন্দিরে ঢোকে তা দিয়ে এই খরচের একটা বড় অংশ ওঠে। এখন তা ধাক্কা খাবে।

নিউজ ফ্রন্ট বাংলার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.