ফুল ফুটলেই ভাত ফোটে- লাভের আশায় বুক বাঁধছে পাঁশকুড়ার চাষীরা

এনএফবি, পূর্ব মেদিনীপুরঃ

ফুল চাষের জন্য বিখ্যাত পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পাঁশকুড়া ব্লক। বছরের প্রায় সারা সময়ের পাশাপাশি এই শীত কালে প্রচুর পরিমাণে বিভিন্ন ধরনের ফুল চাষ হয় পাঁশকুড়ার বিস্তীর্ণ এলাকায়। তবে পাঁশকুড়ার ফুল চাষিরা শুধুমাত্র ফুল ফুটিয়ে বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্ধারণে ক্ষান্ত নন। নিজেদের বাগানের ফোটা ফুল থেকেই তৈরি করছে ফুলের গাছ। ফলে এক দিকে যেমন বাজারে ফুল বিক্রি না হলেও ততটা ক্ষতির মুখ দেখতে হচ্ছে না ফুল চাষীদের।

মূলত গাঁদা ফুল থেকেই তৈরি হচ্ছে গাঁদা ফুল গাছের চারা। ফুল ফুটলেই ভাত ফোটে পাঁশকুড়ার ফুল চাষী পরিবারে। পাঁশকুড়ার ফুল চাষ লাভ জনক চাষ।

পাঁশকুড়ার বিস্তীর্ণ এলাকায় চন্দ্রমল্লিকা গ্যডিওলাস-সহ বিভিন্ন প্রকার শীতকালীন ফুলের চাষ হয়। সারা বছর জমিতে ধানের পাশাপাশি শাকসবজি চাষের পর শীত কালে ফুল চাষ করেন ফুল চাষীরা। কালী পূজার পর শুরু হয় ফুল চাষের তোড়জোড়। এই শীত কালীন ফুল চাষ লাভ জনক হওয়ায় অনেক প্রান্তিক চাষীরা নিজেদের জমি না থাকলেও জমি মালিকের কাছ থেকে জমি লিজ নিয়ে ফুল চাষ করে। ফুলের বাজারদর ভাল থাকলে লাভের অংক বাড়ে। আবার ফুলের বাজারদর কিছু কিছু বছর কম থাকলে সে ক্ষেত্রে ক্ষতির মুখ দেখে চাষিরা। পাঁশকুড়ায় অন্যান্য ফুলের পাশাপাশি সারা বছর গাঁদা ফুলের চাষ হয়।

পাঁশকুড়ার ফুল চাষীদের কাছে গাঁদা ফুলের চাষ আরও বেশি লাভ জনক। কেননা বাজারে গাঁদা ফুলের দাম না থাকলে ফুল বিক্রি করেন না চাষিরা। গাঁদা ফুল থেকে ফুলের বীজ তৈরি করে গাঁদা ফুল গাছের চারা তৈরি করেন। ফুল শুকিয়ে ফুলের বীজ মাঠে বীজতলায় ফেলা হয়। জল সার পরিচর্যার মাধ্যমে বীজতলা বড় করে তোলেন। চারা গাছের দৈর্ঘ্য ৪ ইঞ্চি থেকে ৬ ইঞ্চির মধ্যে হয়ে গেলেই চারা তুলে বাজারে বিক্রি করেন চাষিরা। পাঁশকুড়ার বিভিন্ন বাজারের পাশাপাশি রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত ছাড়াও অন্ধ্রপ্রদেশ ওড়িশা মহারাষ্ট্র বেঙ্গালুরু ও চেন্নাইতে গাঁদা ফুলের চারা রপ্তানি করে পাঁশকুড়ার ফুলচাষিরা। এই গাঁদা ফুলের বীজ থেকে চারা বিক্রি করে লাভের মুখ দেখছে পাঁশকুড়ার উত্তর মেচগ্রাম পিতপুর বাঁশতলা মঙ্গলদাড়ি প্রভৃতি গ্রামের চাষিরা। গাঁদা ফুলের চারা তৈরি করতে এক কাঠা জমিতে খরচ পড়ে প্রায় ৩ থেকে ৫ হাজার টাকা। বিক্রি করে উঠে আসে গড়ে ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা। ফলে শুধু ফুল চাষ না, ফুল থেকে বীজতলা বড় করে চারা বিক্রি করার সঙ্গে যুক্ত পাঁশকুড়ার ফুলচাষিরা।

নিউজ ফ্রন্ট বাংলার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।