সম্পত্তির লোভে নাতির হাতে দাদু খুন, অভিযোগ

এনএফবি, দক্ষিণ দিনাজপুরঃ

নিখোঁজ থাকার চারদিন পর পুকুর থেকে পচাগলা মৃতদেহ উদ্ধার বৃদ্ধের। সম্পত্তির লোভে বৃদ্ধের নাতি খুন করে পুকুরে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ তুলেছে গ্রামবাসীরা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে যে বিষয় নিয়ে শোরগোল পরেছে পুরো গ্রাম জুড়ে। ঘটনাটি দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর থানার সুকদেব গ্রামের। পুলিশ বৃদ্ধের নাতিকে আটক করে মৃতদেহ উদ্ধার করে পুরো তদন্ত শুরু করেছে।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ওই বৃদ্ধের নাম গৌড়লাল সরকার (৮৭), বাড়ি গঙ্গারামপুর থানার শুকদেব গ্রামে। ওই বৃদ্ধ বিজেপি কর্মী হিসাবে এলাকায় পরিচিত।বাড়িতে এক নাতি অমরেশ সরকার (যিনি বন্ধন ব্যাংকে চাকরি করেন) ও নাতি বউকে নিয়ে বসবাস করেন।

নিজস্ব চিত্র

গত শনিবার ওই বৃদ্ধার নাতি ও নাতির স্ত্রী তার দাদুকে ঘরে রেখে বোল্লা মেলায় গিয়েছিলেন, বাড়ি ফিরে দেখেন দাদু নিখোঁজ। অনেক খোঁজাখুঁজি করে তাকে পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ, যার পরে নিখোঁজের বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ জানায় গ্রামবাসীরা। লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পরে তদন্তে নেমে আজ সকালে বৃদ্ধের বাড়ির পাশে থেকে হাত পা বাঁধা অবস্থায় পচাগলা বৃদ্ধের মৃতদেহ উদ্ধার করেন গঙ্গারামপুর থানার পুলিশ। যে খবর ছড়াছড়ি হতেই শোরগোল পড়ে যায় ওই গ্রামে। পুলিশ ঘটনারস্থল থেকে মৃতদেহ উদ্ধার থানায় নিয়ে আসেন।পাশাপাশি বৃদ্ধের নাতি অমরেশ সরকারকেও আটক করেছে পুলিশ।

স্থানীয়দের দাবি, সম্পত্তির লোভেই ওই বৃদ্ধকে খুন করে হাত পা বেধে বাড়ির পাশে পুকুরে ফেলে দিয়েছে তার নাতি অমরেশ। পুলিশ তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করুক।পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় নামানো হয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

এ বিষয়ে সুনীল বিশ্বাস ও রামকৃষ্ণ মণ্ডল নামে দুই গ্রামবাসী জানিয়েছেন, চারদিন ধরে নিখোঁজ ছিল গৌরলাল সরকার। আজ সকালে হাত পা বাঁধা, পচাগলা অবস্থায় পুলিশ তার দেহ বাড়ির পাশের একটি পুকুর থেকে উদ্ধার করেছে। ওই বৃদ্ধ খুব ভালো মানুষ ছিল, এলাকার সকলের খুব প্রিয় ও কাছের মানুষ ছিল।কিন্তু সম্পত্তির লোভে তার নাতিই এমন কাজ করবে আমরা ভাবতে পারিনি।দোষীদের শাস্তির দাবি জানাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *