আইএসএল অভিযানের আগেই ‘এটিকে’ সরানোর দাবীতে বিক্ষোভের মুখে সবুজ-মেরুন

স্পোর্টস ডেস্ক, এনএফবিঃ

মোহনবাগানের নামের আগে থেকে এটিকে সরবে কিন্তু কবে সরবে! প্রতিশ্রুতির পরে প্রতিশ্রুতি মোহনবাগান কর্তাদের। ঠিক ছিল দুর্গাপুজোর আগে সরবে এটিকে নাম। দুর্গাপুজো চলে গেল কিন্তু সরল না। তাই লক্ষ্মী পুজোর দিন অর্থাৎ যখন এটিকে মোহনবাগান তাঁদের আইএসএলের প্রথম ম্যাচ খেলতে নামবে চেন্নাইয়ান এফসির বিরুদ্ধে তার ২৪ ঘন্টা আগে মোহনবাগান সচিব দেবাশিস দত্তর দেশপ্রিয় পার্কের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখান সমর্থকদের দাবি হয়ত এটিকে নাম সরাতে হবে তাঁদের ক্লাবের নামের আগে থেকে অথবা বাগান সচিবকে পদত্যাগ করতে হবে চেয়ার থেকে। পোস্টারে লেখা এটিকে ছাড়ুন মোহনবাগান বাঁচান। মোট দুই দফায় হয় এই বিক্ষোভ। এরপর ক্লাবের সামনে গিয়ে সমর্থকেরা বিক্ষোভ দেখান। তখন ক্লাবে এটিকে মোহনবাগান বনাম চেন্নাইয়ান এফসি ম্যাচের মেম্বারশিপ টিকিট দেওয়া হচ্ছিলো। এই বিষয়ে দেবাশিস দত্তর সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করলে তিনি কোনো প্রতিক্রিয়া দেননি। শুধু তাই নয় ম্যাচ বয়কটের ডাকও দেন বাগান সমর্থকেরা।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালে এটিকের সঙ্গে মার্জ হয় মোহনবাগান। এরপরই সমর্থকদের আন্দোলন জোরদার হয়। কখনও এটিকে কর্ণধার সঞ্জীব গোয়েঙ্কার সিএসসির অফিসের সামনে পোস্টার দেওয়া হয় এটিকে সরিয়ে নেওয়ার জন্য কখনও ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ। কখনও বা এটিকে মোহনবাগানের ম্যাচে যুবভারতীতে বিক্ষোভ। কখনও ইডেনে সঞ্জীব গোয়েঙ্কা ম্যাচ দেখতে গেলে স্লোগান এটিকে রিমুভ নিয়ে।এত কিছুর পরেও এটিকে নাম সরছে না। মোহনবাগান সচিব দেবাশিস দত্ত এটিকে সরানোর বিষয়ে আগে জানান, এটা একটা লম্বা প্রক্রিয়া, আলোচনা চলছে। এই বিষয়ে খুব দ্রুত সমাধান হবে।”

কিন্তু কবে হবে এই বিযুক্তিকরণ? চলতি বছরেই নাকি আরও দেরি হবে? এই প্রসঙ্গে তিনি আরও যোগ করেন, “নির্দিষ্টভাবে এমন কোনও দিনের কথা এখনই বলা সম্ভব নয়। তবে খুব তাড়াতাড়িই বাগান সমর্থকেরা খুশির খবর পাবেন, সেটুকু আমি বলতেই পারি।”

যদিও মোহনবাগান সভাপতি টুটু বসু জানান, “এটিকে না থাকলে আমরা আইএসএল টুর্নামেন্টে খেলতেই পারতাম না। এই নামটা আমাদের উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়নি। তবে এটিকে নাম উঠে গেলে যে কতটা ভালো হবে তা আমার জানা নেই। আমার মনে হয়, সঞ্জীব গোয়েঙ্কাকে বিষয়টা বুঝিয়ে বললে উনি বুঝবেন। তবে গালাগাল করে লাভ নেই। পাশের ক্লাবের অবস্থা দেখছেন তো, একের পর এক ইনভেস্টর আসছে, চলে যাচ্ছে। তাই ভদ্রভাবে বলতে হবে। ৫০ কোটি টাকা লাগে আইএসএল খেলতে। তা আমার দেওয়ার ক্ষমতা ছিল না। ওরা এসেছেন তাই আমরা আইএসএল খেলছি। এটা মাথায় রাখতে হবে। সমর্থকদের বুঝতে হবে নাম আগে নয়, পারফরম্যান্স আগে। দলটা জিতলে আমাদের আনন্দ হয়।”

নিউজ ফ্রন্ট বাংলার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।