প্রথম আফ্রিকান দেশ হিসেবে ইতিহাস গড়ল মরক্কো, পরাজিত হয়েই মাঠ ছাড়ল রোনাল্ডো

অঞ্জন চ্যাটার্জী, এনএফবিঃ

কাতারে ইতিহাস লিখল মরক্কো। একইসঙ্গে বিশ্বকাপ মঞ্চে প্রায় শেষবারের মত মাঠ ছাড়লেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। মাথা নিচু করে বিশ্বকাপ থেকে মাঠ ছাড়লেন সি আর সেভেন। আর মরক্কো প্রথম আফ্রিকান দেশ হিসেবে বিশ্বকাপ ইতিহাসে সেমিতে। শক্তিশালী পর্তুগালকে স্কিল নির্ভর ফুটবল খেলে ১-০ গোলে হারালো তারা। গত ম্যাচের মত এদিনও ক্রিস্তিয়ানো রোনাল্ডোকে প্রথম একাদশের বাইরে রেখে দল সাজিয়েছিলেন পর্তুগাল কোচ ফার্নান্দো স্যান্টোস। পরে নামলেও বড্ড দেরি হয়ে যায়। যদিও ৪ মিনিটেই সুযোগ এসে গিয়েছিল পর্তুগালের সামনে। ব্রুনো ফার্নান্ডেজের ফ্রি কিকে হেড করেছিলেন জোয়াও ফেলিক্স। তাঁর হেড সরাসরি চলে যায় মরক্কো গোলকিপার ইয়াসিন বুনুর হাতে। শুরুর চাপ সামলে ধীরে ধীরে ম্যাচের রাশ তুলে নিতে থাকে মরক্কো। ৭ মিনিটে হাকিম জিয়েচের কর্নারে হেড করেছিলেন ইউসুফ নাসিরি। বল অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। এরপর আক্রমণ প্রতি আক্রমণে খেলাটা দারুণ জমে ওঠে। পর্তুগাল বারবার হানা দিচ্ছিল মরক্কো সীমানায়। কিন্তু গোলের মুখ খুলতে পারছিল না। ২৬ মিনিটে আবার সুযোগ এসে গিয়েছিল মরক্কোর সামনে। জিয়েচের ইনসুইং ফ্রিকিক হেড করেছিলেন নেসিরি। তাঁর হেড বারের ওপর দিয়ে বেরিয়ে যায়। ৪২ মিনিটে বাঁদিক থেকে উঠে এসে সেন্টার করেছিলেন আত্তিয়াত আল্লাহ। কোস্তা ও রুবেন দিয়াজের মাথার ওপর দিয়ে লাফিয়ে উঠে হেডে গোল করে যান ইউসুফ নেসেরি। ৪৫ মিনিটে সমতা ফেরানোর সুযোগ এসে গিয়েছিল পর্তুগালের সামনে। ব্রুনো ফার্নান্ডেজের শট বারে লেগে বেরিয়ে যায়। প্রথমার্ধে শেষ হয় ১-০ ব্যবধানে। দ্বিতীয়ার্ধে ৫১ মিনিটে ইগো ভুলে দলের স্বার্থে ক্রিস্তিয়ানো রোনাল্ডোকে মাঠে নিয়ে আসেন পর্তুগাল কোচ ফার্নান্দো স্যান্টোস।

রোনাল্ডো আসার পর আক্রমণে ঝাঁঝ বাড়ে পর্তুগালের। ৬৪ মিনিটে সমতা ফেরানোর সুযোগ এসে গিয়েছিল। বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া তাঁর শট বারের ওপর দিয়ে বেরিয়ে যায়। দ্বিতীয়ার্ধে ব্রুনো ফার্নান্ডেজ, জোয়াও ফেলিক্স, ক্রিস্তিয়ানো রোনাল্ডোরা একের পর এক আক্রমণ তুলে নিয়ে আসছিলেন। কিন্তু গোল আসেনি। ৮২ মিনিটে পর্তুগালকে নিশ্চিত গোলের হাত থেকে বঞ্চিত করেন ইয়াসিন বুনু। রোনাল্ডোর সাজিয়ে দেওয়া বলে বাঁপায়ে জোরালো শট নিয়েছিলেন জোয়াও ফেলিক্স। দারুণ দক্ষতায় ঝাঁপিয়ে পড়ে নিশ্চিত গোল বাঁচান বুনু। ম্যাচের ইনজুরি সময়ের প্রথম মিনিটে রোনাল্ডোর শট আটকে আবার দলের পতন রোধ করেন মরক্কো গোলকিপার। অতিরিক্ত ৮ মিনিট দেওয়া হয় মনে হচ্ছিলো অঘটন হবে কিন্তু হয়নি। সেমিতে গিয়ে উৎসবে মাতলো মরক্কো। আর পর্তুগালে শুধু বিষাদের ছায়া।