চ্যাংড়াবান্ধা দিয়ে বাংলাদেশে পণ্য পাঠানোর নয়া সিস্টেমের সূচনা,পরিদর্শনে পুলিশ সুপার

এনএফবি,কোচবিহারঃ

চ্যাংড়াবান্ধা আন্তর্জাতিক স্থল বন্দরে রাজ্য সরকারের ‘সুবিধা ফেসিলিয়েশন সিস্টেম অ্যাপের সূচনা করা হল। এই নয়া সিস্টেম রাজ্যের একাধিক স্থল বন্দরে প্রচলিত থাকলেও চ্যাংড়াবান্ধায় এতদিন প্রচলন করা হয়নি। এই নয়া সিস্টেমে ভারত থেকে বাংলাদেশের পণ্য নিয়ে যাতায়াতকারী পরিবহনের ক্ষেত্রে অনেকটাই সুবিধে হবে বলে জানা গিয়েছে।

এদিন এই নয়া সিস্টেম প্রচলনের পর চ্যাংড়াবান্ধা পরিদর্শনে যান কোচবিহার জেলা পুলিশ সুপার সুমিত কুমার। তাঁর সঙ্গে ছিলেন মাথাভাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অমিত ভার্মা, মেখলিগঞ্জের এসডিপিও অরিজিৎ পাল চৌধুরী, ওসি রাহুল তালুকদার প্রমুখ। এছাড়াও প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল।

পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, এখন ব্যবসায়ীরা নিজেদের পণ্য বাংলাদেশে পাঠানোর ক্ষেত্রে খুব সহজেই এই অ্যাপের মাধ্যমে বুকিং করে দ্রুত পৌঁছে দিতে পারবেন। আগে যেমন পণ্য নিয়ে এসে সীমান্তে দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকতে হত, এতে প্রচুর খরচ হয়ে যেত। সেই সমস্যা আর থাকবে না।

অন্যদিকে চ্যাংড়াবান্ধার পাথর ব্যবসায়ী ইদু সওদাগর অভিযোগ করে জানিয়েছেন, এই অ্যাপে সুবিধা হবে ঠিকই। রাজ্য সরকারের ভালো উদ্যোগ। কিন্তু পাথর ব্যবসার ক্ষেত্রে এই অ্যাপে যা খরচ পড়বে, তাতে বাংলাদেশের কোন ক্রেতা এই সীমান্ত দিয়ে পাথর নিতে রাজি হবে না। ফলে পাথর রপ্তানির ব্যবসা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হতে হবে। অথচ ভুটান থেকে যে পাথর এই সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে যাবে, সেখানে অনেক কম টাকা চার্জ দিতে হবে বলে ইদু সওদাগরের অভিযোগ। বিষয়টি নিয়ে সাংগঠনিক ভাবে প্রশাসনের দ্বারস্থ হবেন বলেও তিনি জানিয়েছেন।

নিউজ ফ্রন্ট বাংলার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।