চিরন্তন প্রথাকে মান্যতা দিতে আজও গুরুত্বপূর্ণ রেডিওর ভূমিকা

এনএফবি,জলপাইগুড়িঃ

আধুনিক গণমাধ্যম গুলোর মধ্যে এখন রেডিওর ব্যবহার কিছুটা কম থাকলেও বর্তমানে তার কদর আবার বৃদ্ধি পাচ্ছে । আগামীকাল মহলয়া। আর রেডিওতে মহালয়া শোনার প্রথা চিরন্তন৷ আর সেই প্রথাকে মান্যতা দিতে তাই অনেক বাড়িতেই চলছে পুরোনো রেডিও সারাইয়ের কাজ। জলপাইগুড়ির রেডিও সারাইয়ের দোকানগুলোতে বাড়ছে ভিড় ৷ যদিও এইবার কিছুটা হলেও বৃদ্ধি পেয়েছে নতুন করে রেডিও কেনার ঝোঁক।

বেতার তরঙ্গ কিংবা নরেডিও তরঙ্গ এক ধরণের তড়িৎ চৌম্বকীয় বিকিরণ। এটি শুধু বিনোদনের মাধ্যম নয়,এটি শিক্ষার মাধ্যম ও বটে।১৮৯৪ সালে ইতালির বিজ্ঞানী গুগলিয়েলমো মার্কনি প্রথম বেতার নিয়ে কাজ শুরু করেন। রেডিও আবিষ্কারে ভারতীয় বাঙালি বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসুর অবদান ও অনস্বীকার্য ৷ তাই বাঙালির সাথে রেডিও র সম্পর্কের ভীত সেই প্রাচীন কাল থেকেই ৷ আপামর বাঙালি নানা সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে সারা বছর ব্যস্ত থাকলেও মহালয়ার দিন ভোরে বীরেন্দ্র কৃষ্ণ ভদ্রের চন্ডীপাঠকে জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত করে ফেলেছে ৷ তাই বছরের একটা দিনে রেডিওর গুরুত্ব কে কোন ভাবেই অস্বীকার করা যায়না ৷

নিউজ ফ্রন্ট বাংলার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।