বিপক্ষের সেট পিসে আরও মনোনিবেশ করতে হবে, আরও সাবধান হতে হবেঃ দিয়াজ

অঞ্জন চ্যাটার্জী, এনএফবিঃ

তিনটি ম্যাচ খেলা হয়ে গেলেও এসসি ইস্টবেঙ্গলের কাছে জয় এখনও অধরা। তার ওপর তিন ম্যাচে দশটি গোল খেয়েছে তারা। গত ম্যাচের পরেই মেজাজ হারিয়ে প্রধান কোচ হোসে মানুয়াল দিয়াজ বলেই দিয়েছিলেন, তাঁর দলের খেলোয়াড়রা হিরো আইএসএলের মানের নন। কিন্তু এর পরেও তাঁকে এগিয়ে যেতে হবে। যেমন শুক্রবারই তাঁকে দল নামাতে হবে চেন্নাইন এফসি-র বিরুদ্ধে, যারা প্রথম দুটি ম্যাচেই জিতেছে। হারিয়েছে হায়দরাবাদ এফসি ও নর্থইস্ট ইউনাইটেড এফসি-কে। লিগ টেবলে প্রথম চারের মধ্যে থাকা দলের বিরুদ্ধে কী ভাবে ঘুরে দাঁড়াবেন তাঁর দলের ছেলেরা, তা এখন কোচ ছাড়া আর কেউই বোধহয় জানেন না। কী বলছেন তিনি এই প্রসঙ্গে? গত ম্যাচের পরে যে রকম হতাশায় ভুগছিলেন, বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠকে তাঁকে ততটা হতাশ মনে হল না। বরং কিছুটা আশার কথাই শোনালেন সমর্থকদের। কী বললেন তিনি, জেনে নেওয়া যাক।

প্রশ্নঃ আপনার দলের প্রধান সমস্যাটা কী বলে আপনার কী মনে হয়?

দিয়াজঃ প্রতিপক্ষ গোল দিলেই আমরা গুটিয়ে যাচ্ছি। গত ম্যাচে আমরাই প্রথমে গোল দিয়ে এগিয়ে যাই। দশ মিনিটের মধ্যে ওরা তিনটে সেট পিস থেকে গোল করে ৩-১-এ এগিয়ে যায়। আমাদের সেট পিসে আরও উন্নতি করতে হবে।

প্রশ্নঃ আপনারা কিন্তু গোল পেতে শুরু করেছেন। এটা কি ইতিবাচক দিক বলে মনে করেন?

দিয়াজঃ অবশ্যই ইতিবাচক। এ থেকেই বোঝা যায় যে আমাদের আক্রমণ বিভাগ উন্নতি করছে। ফুটবল ভারসাম্যের খেলা। আবার বিপক্ষ বেশি গোল করলে বুঝতে হবে আমাদের রক্ষণ ভাল অবস্থায় নেই।

প্রশ্নঃ চেন্নাইনের বিরুদ্ধে নামার আগে দলের রক্ষণ বিভাগকে কী পরামর্শ দেবেন?

দিয়াজঃ আমাদের সেট পিসে আরও মনোনিবেশ করতে হবে, আরও সাবধান হতে হবে। সিট পিসে আমরা বারবার গোল খাচ্ছি। প্রথম ম্যাচেও আমাদের বিপক্ষ কর্নার থেকে গোল করেছিল।

প্রশ্নঃ রিজার্ভ বেঞ্চ থেকে কাউকে কাল প্রথম এগারোয় রাখার পরিকল্পনা আছে আপনার?

দিয়াজঃ আমাদের দলের কয়েকজনের চোট রয়েছে। তবে (খেলোয়াড়ের) সংখ্যার দিক থেকে আমরা ঠিক জায়গাতেই আছি। এমন সিদ্ধান্ত নিতেই হবে, এমন কোনও বাধ্যবাধকতা নেই। দেখা যাক কী হয়।

প্রশ্নঃ চেন্নাইন এফসি নিয়ে আপনার কী ধারণা? ওদের হারাতে পারবেন বলে মনে হয়?

দিয়াজঃ চেন্নাইন খুবই ভাল দল। ওরা জয়ের মধ্যে রয়েছে। ওদের বিরুদ্ধে আমাদের ভুল শুধরে নামতে হবে। দলের ওপর আমার আস্থা আছে। আমার বিশ্বাস, আমরা প্রথম জয় পাব।

প্রশ্নঃ অরিন্দমের চোট কেমন আছে? আদিল খানকে কি কাল প্রথম এগারোয় দেখা যাবে?

দিয়াজঃ অরিন্দম আমাদের টেকনিক্যাল ও মেডিক্যাল স্টাফদের তত্ত্বাবধানে ক্রমশ সুস্থ হয়ে উঠছে। তবে কত দিন পরে মাঠে ফিরবে, সেটা বলতে পারব না। প্রস্তুতি শিবির চলাকালীন আদিল খান চোট পেয়েছিল। এখন আগের চেয়ে ভাল আছে। কাল ও খেলতে পারে।

প্রশ্নঃ সাত দিনে তিনটে ম্যাচ খেলতে হচ্ছে আপনাদের। খেলোয়াড়দের তরতাজা রাখা কতটা কঠিন হয়ে উঠছে?

দিয়াজঃ লিগের ক্রীড়াসূচী যেমন, তেমনই থাকবে। কেউ যাতে চোট না পায়, তা দেখা আমাদের কোচিং ও টেকনিকাল স্টাফের দায়িত্ব।

প্রশ্নঃ জ্যাকিচন্দ সিং ও সৌরভ দাস সম্পর্কে কোনও তথ্য দেবেন?

দিয়াজঃ জ্যাকির এখনও চোট রয়েছে। মেডিক্যাল স্টাফ ওকে সুস্থ করে তোলার চেষ্টা করছে। ওর মানের একজন খেলোয়াড় সুস্থ হয়ে উঠলে নিশ্চয়ই মাঠে নামবে। ও দলের সঙ্গেই ট্রেনিং করছে। মনে হয় খুব তাড়াতাড়িই সুস্থ হয়ে উঠবে। ওরা এই ম্যাচে মরিয়া লড়াই করবে।

অন্য দিকে, চেন্নাইন এফসি-র কোচ বোজিদার বান্দোভিচ যতই প্রথম দুই ম্যাচ জিতে শুরু করুন না কেন, বিপক্ষকে কম গুরুত্ব দিতে রাজি নন। তাঁর মতে, এসসি ইস্টবেঙ্গল যতই দশ গোল খাক বা দু’টি ম্যাচ হেরে মাঠে নামুক, তাঁদের কাছে সেটা কোনও ব্যাপার নয়। চেন্নাইন কোচের ধারণা, এই ম্যাচে লাল-হলুদ বাহিনী জেতার জন্য মরিয়া হয়ে উঠবে এবং সে জন্য তারা তৈরিও। বৃহস্পতিবার ভার্চুয়াল সাংবাদিক বৈঠকে যা বললেন তিনি, তার নির্বাচিত অংশ তুলে ধরা হল এখানে।

প্রশ্নঃ এত ঘন ঘন ম্যাচ। খেলোয়াড়দের কী করে তরতাজা রাখেন? কালকের ম্যাচে কি দলে কোনও পরিবর্তন হবে?

বান্দোভিচঃ সত্যিই কম সময়। এই সময়ের মধ্যে খেলোয়াড়দের রিকভারি, নিজেদের খেলার বিশ্লেষণ, বিপক্ষের তথ্য-পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ, সবই করতে হচ্ছে। এটা অবশ্য আমরা অনেক দিন ধরেই করছি। ওদের সব ম্যাচই আমরা দেখেছি। পরের ম্যাচের জন্য আমাদের দলের খেলোয়াড়দের তৈরি রাখছি। দলে পরিবর্তন কাল দেখা যাবে।

প্রশ্নঃ প্রথম দুটো ম্যাচেই আপনারা জিতেছেন। তা সত্ত্বেও কোনও জায়গায় কি এখনও সংশোধন বা উন্নতি দরকার বলে মনে করেন?

বান্দোভিচঃ অবশ্যই উন্নতি দরকার। একটা দল একই জায়গায় থাকবে, তা তো হয় না। অবশ্যই আমরা আরও ভাল খেলতে পারি এবং আমাদের আরও ভাল খেলতে হবে। তবে আমাদের শারীরিক ও কৌশলগত ভাবে আরও উঁচুতে উঠতে হবে। এই মাসে প্রায় প্রতি চার দিন অন্তর ম্যাচ রয়েছে। বেশি অনুশীলনের সুযোগ পাওয়া যাবে না। তবু বলব উন্নতি করতে হবে এবং আমরা করবও। তবে শুরু থেকে আমাদের যে সমস্যাগুলো ছিল, সেগুলো যে ভাবে কাটিয়ে উঠতে পেরেছি আমরা, তাতে আমি খুশি। এতে আত্মবিশ্বাস আরও বাড়বে। পরের ম্যাচে আমরা আরও মনোনিবেশ করতে পারব।

প্রশ্নঃ আপনারা দুটো ম্যাচ জিতেছেন আর এসসি ইস্টবেঙ্গল দুটো ম্যাচ হেরেছে এবং তিন ম্যাচে দশ গোল খেয়েছে। কী ভাবে দেখছেন ব্যাপারটাকে?

বান্দোভিচঃ আমরা প্রতি ম্যাচ ধরে ধরে এগোচ্ছি। ওরা দুটো ম্যাচে হেরে আসছে মানে ওরা এই ম্যাচে জেতার জন্য মরিয়া লড়াই করবে। আমাদের তৈরি থাকতে হবে। আমাদের সামনেও টানা তিন ম্যাচ জেতার সুযোগ। সেটা আমাদের মাঠে করে দেখাতে হবে। সে জন্য আমাদের আরও ভাল খেলতে হবে। বিপক্ষকে শ্রদ্ধা করি। আমাদের কী করতে হবে, তা জানি। ওরা দশ গোল খেয়েছে বা দুটো ম্যাচে হেরে এসেছে, সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। এ জন্য ম্যাচটা আমাদের পক্ষে সোজা হবে, এমন ভাবার কোনও কারণ নেই। এই সময়ে ওরা জেতার জন্য ঝাঁপাবেই।

প্রশ্নঃ রহিম আলি গত দুই ম্যাচে ব্যর্থ হয়েছেন। পরের ম্যাচে কি ওঁকে না খেলিয়ে অন্য কাউকে দিয়ে শুরু করাতে পারেন?

বান্দোভিচঃ সেটা কাল ঠিক করব। তবে আমি ‘ব্যর্থ’ শব্দটা বলতে পছন্দ করি না। ও চেষ্টা করেছে। ও আরও ভাল খেলতে পারে। ওকে একটু সময় দিলে ও আরও ভাল খেলবে বলেই আমার বিশ্বাস। তাই ওকে ব্যর্থ বলা যাবে না। আসল কথা হল দল জিতছে কি না। তা ছাড়া আলির সমস্যাগুলো দূর করতে ওকে সাহায্য করছি। আশা করি ও উন্নতি করবে। অনুশীলনে ও যে রকম পরিশ্রম করে, তাতে আমি খুশি। ও ভাল খেলবে।

প্রশ্নঃ আপনার দলে কোনও চোট-আঘাত সমস্যা রয়েছে?

বান্দোভিচঃ শুধু রাফায়েল ক্রিভেলারো। এছাড়া আর কারও কোনও চোট আপাতত নেই।

প্রশ্নঃ আপনাদের কাউন্টার অ্যাটাকগুলো প্রতিপক্ষের কাছে খুবই বিপজ্জনক হয়ে উঠছে। এ রকম কি সারা লিগেই দেখা যাবে?

বান্দোভিচঃ আমরা ম্যাচ ধরে ধরে এগোব। প্রতিপক্ষ কী রকম, তার ওপর নির্ভর করবে এটা। দু’মাসের মধ্যে সব বিভাগে উন্নতি করা তো সম্ভব নয়। ভবিষ্যতে আক্রমণে আমরা নিশ্চয়ই আরও কিছু কম্বিনেশন তৈরি করতে পারব। তা ছাড়া আক্রমণে ওঠার সময় রক্ষণের দিকটাও ঠিক রাখতে হয়। ভাল রক্ষণ না থাকলে আক্রমণে ওঠা কঠিন হয়। সেট পিসেও আমাদের উন্নতি করতে হবে। সে জন্য সময় দরকার। দু-এক মাসে এটা সম্ভব নয়।

প্রশ্নঃ এসসি ইস্টবেঙ্গল সেট পিসে অনেক গোল খেয়েছে। এই ব্যাপারে আপনার কী পরিকল্পনা রয়েছে?

বান্দোভিচঃ এটা আমরাও খেয়াল করেছি। তবে আমরা যেমন ওদের খেলা দেখেছি, ওরাও আমাদের খেলা দেখেছে। সে ভাবেই প্রস্তুতি নেব। আমার বিশ্বাস ওদের কোচও এই জায়গাটা শোধরানোর চেষ্টা শুরু করে দিয়েছেন। উনি নিশ্চয়ই এটা এড়ানোর পরিকল্পনাও করবেন। আমরা আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.