সুনীলকে সমীহ হাবাসের

অঞ্জন চ্যাটার্জী, এনএফবিঃ

বেঙ্গালুরু এফ সির বিরুদ্ধে নামার আগে কিছুটা সতর্ক অন্টেনিও লোপেজ হাবাস। তিনি মনে করেন এই জায়গা থেকেও ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব এবং আইএসএলে আগেও এমন হয়েছে। সুনীল ছেত্রী ফর্মে নেই বলে তিনি যে খুশি, তাও নয়। তিনি মনে করেন, এখনও সুনীলই সেরা। ফর্মে না থাকা বেঙ্গালুরু এফসি-র বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার মাঠে নামার আগে আর কী বললেন সবুজ-মেরুন কোচ? শুনে নেওয়া যাক।

বেঙ্গালুরু শেষ পাঁচটা ম্যাচে জয় পায়নি। এতে কি আপনাদের সুবিধা হবে?

উত্তরঃ এ বারের আইএসএলের ম্যাচগুলো যদি লক্ষ্য করে থাকেন, তা হলে দেখবেন, প্রায় সব ম্যাচেই ৩০-৪০ মিনিটের মধ্যে সমতা ফিরে এসেছে। তার পরে একটা জয়সূচক গোল হয়েছে। সব ম্যাচেই একটা মরিয়া ভাব দেখা যাচ্ছে। কোনও নিয়ন্ত্রণ থাকছে না। আরও দু-তিন গোল করে দিচ্ছে কোনও কোনও দল। আমাদের স্থীরতা দরকার। দলের মধ্যে ভারসাম্য প্রয়োজন। হার বা জিৎ তো থাকেই। আমি কোনও দলের মধ্যে বিশাল কোনও ফারাক দেখতে পাই না। এ কথা ভেবেই এটিকে মোহনবাগানে কাজ করি আমি।

সুনীল ছেত্রীর ধার কমে গিয়েছে বলেই কি বেঙ্গালুরুর এমন বেহাল দশা? আপনি কী মনে করেন?

উত্তরঃ সুনীল সর্বকালের সেরা। বেঙ্গালুরু এফসি এখন আর আগের মতো নাও থাকতে পারে। তবে সুনীল ভারতীয় ফুটবলে একজন কিংবদন্তি। এ দেশের তরুণ খেলোয়াড়দের কাছে ও আদর্শ। ওর প্রতি আমাদের যথেষ্ট শ্রদ্ধা আছে। আমার মনে হয়না একটা দল একজন খেলোয়াড়ের ওপর নির্ভর করে। ফুটবল দলগত খেলা। রয় বা ছেত্রী একা দলকে জেতাতে পারে না। এটা আসল ফুটবল নয়।

সুনীল ছেত্রী

বেঙ্গালুরুর শক্তি কোন কোন জায়গায়?

উত্তরঃ বেঙ্গালুরু ভাল দল। ওরা কিছু খেলোয়াড়ের ওপর নির্ভর করে, যারা ভাল খেলতে পারছে না। সব দলের কোচই ম্যাচ জিততে চায়। সমস্যার সমাধান করতে হলে কোচকে খেলোয়াড়দের ওপরই নির্ভর করতে হবে।

গত কয়েকটি ম্যাচে খারাপ ভাবে গোল খেয়েছেন আপনারা। গোল আটকানোর জন্য পরিকল্পনা কী?

উত্তরঃ ভাল ডিফেন্স দরকার। মাঝে মাঝে শুধু ডিফেন্সই করে যেতে হয়। মাঝে মাঝে বলের দখল চলে গেলেও তা পুণরুদ্ধার করতে হয়। বল যদি আমাদের দখলে থাকে, তা হলে ওদের গোল করার সম্ভাবনা অনেক কমে যাবে।

শেষ তিন ম্যাচে আপনারা ৮ পয়েন্ট খুইয়েছেন। এর পরেও কি মরশুমের শেষে সেরা চারে থাকা সম্ভব হবে বলে মনে করেন?

উত্তরঃ এখনও অনেক খেলা বাকি আছে, অনেক পয়েন্ট জেতা বাকি আছে। এই পরিস্থিতি থেকে নিজেদের বার করে আনার উপায় বা সুযোগও আছে। আমার মনে আছে ২০১৯-২০ মরশুমে চেন্নাইন এফসি সাতটা ম্যাচে হারার পরেও লিগ টেবলে দ্বিতীয় স্থানে ছিল। এমনকী ফাইনালেও খেলেছিল। আমাদের উন্নতি করার চেষ্টা করে যেতে হবে। দুটো ম্যাচে হারার পরে দুটো ম্যাচে জেতাও যায়। লম্বা মরশুম রয়েছে সামনে। পরিস্থিতি পরিবর্তন হতেই থাকে। তিনটে ম্যাচে আমরা জিততে পারিনি ঠিকই। কিন্তু এরপরে টানা তিন ম্যাচে জিততেও পারি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.