জ্যোতিষকে সামনে রেখে আসছে ভিন্ন ধারার ছবি

বিনোদন ডেস্ক, এনএফবিঃ

জ্যোতিষ বিজ্ঞান না অপবিজ্ঞান, এই বিতর্কের প্রেক্ষিতে এক সিরিয়াল কিলারের কাহিনী নিয়ে গড়ে উঠেছে বাংলা ছবি আয়ুরেখা।

জ্যোতিষ বিজ্ঞান না অপবিজ্ঞান- সুদীর্ঘকালের বিতর্ক। এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে রহস্যঘন বাংলা ছবি গড়ে উঠেছে সিরিয়াল কিলারের ঘটনা নিয়ে। ছবির নাম আয়ু রেখা। দেশের যুক্তিবাদী আন্দোলনের পথিকৃৎ প্রবীর ঘোষ তাঁর অলৌকিক নয়, লৌকিক গ্রন্থের তৃতীয় খন্ডের ৯১ পৃষ্ঠায় লিখেছেন “জ্যোতিষ, যুক্তি ও বিজ্ঞান নিয়ে আলোচনা করতে করতে কিছু বিজ্ঞানীর কথা মনে পড়ে গেল। এঁরা সরাসরি জ্যোতিষ শাস্ত্রের বিরুদ্ধে একটি ইস্তাহার প্রকাশ করেছিলেন। ইস্তাহারটি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৭৫-এর সেপ্টেম্বরে দি হিউম্যানিস্ট পত্রিকায়, স্বাক্ষরকারী ১৮৫ জন বিশিষ্ট বিজ্ঞানীদের মধ্যে ১৮ জন নোবেল বিজয়ী।

পরিচালক রাজদীপ ঘোষের এই ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় আছেন বনি সেনগুপ্ত, ঋত্বিক চক্রবর্তী ও উষশী রায়। ছবিতে ভাস্কর চরিত্রে থাকছেন বনি। সে সিরিয়াল কিলার। কিন্তু সে তাঁর খুনের পরিকল্পনা সাজায় জ্যোতিষ শাস্ত্রের দিনক্ষণ তিথি নক্ষত্র গণনা করে। উল্টোদিকে এক তীক্ষ্ণ বুদ্ধিমান পুলিশ ইন্সপেক্টরের চরিত্রে অভিনয় করছেন ঋত্বিক চক্রবর্তী। এক দুর্ঘটনায় স্ত্রী কন্যাকে হারিয়ে চলে যান অজ্ঞাতবাসে। এই সিরিয়াল কিলারকে প্রমাণ-সহ খুঁজতে কেন ঋত্বিক যুক্ত হলেন সেসব জানতে দেখতে হবে আয়ুরেখা ছবিটি। তবে জ্যোতিষ শাস্ত্রের সাহায্য নিয়ে ইন্সপেক্টর যদি অপরাধীকে গ্রেফতার করতে পারেন তাহলে বিশ্বের পুলিশ বিভাগের প্রয়োজনীয়তা ফুরোবে তা হলফ করে বলা যায়। দেশ বিদেশে বহু মানুষ জ্যোতিষ শাস্ত্রে বিশ্বাস রাখেন। আমাদের দেশে কিন্তু রেডিও বা সরকারি টিভিতে অর্থাৎ দূরদর্শনে জ্যোতিষ বিজ্ঞাপন কেন নিষিদ্ধ সে প্রশ্ন থেকেই যায়। প্রশ্ন থেকে যায় আয়কর দেওয়ার ক্ষেত্রে জ্যোতিষ চর্চা থেকে রোজগার দেখানো যায় না কেন।