কোলাঘাট উৎসবে পিঠেপুলি প্রতিযোগিতা

এনএফবি, পূর্ব মেদিনীপুরঃ

গত ১৩ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়েছে ২৬তম বর্ষের পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কোলাঘাট উৎসব। ছোট থেকে প্রবীণ সবার জন‍্যই ছিল বহুমুখী ভাবনা এবং নানাবিধ আয়োজন। এদিন ছিল মা ও মেয়েদের পিঠেপুলি ও ভেজিটেবল আর্ট প্রতিযোগিতা।

এমনিতেই পৌষ মানেই বাংলার লোকায়ত পৌষ পার্বণ ও পিঠেপুলি উৎসবের আমেজ লক্ষ্য করা যায়। এই দিন সকালে পয়লা পৌষেই যেন সেই উৎসব শুরু হয়ে গেল এই আয়োজনের মাধ্যমে। প্রায় শতাধিক মা ও মেয়রা শীতের নানাবিধ সবজি ও ফসল দিয়ে বিভিন্ন রকমের শিল্পকলা তৈরি করে নিয়ে আসেন। দুপুরে ছিল পিঠেপুলি প্রতিযোগিতা। মা ও মেয়েরা যে যার মত করে নানা ধরনের পিঠে তৈরী করে আনেন।

নজর কেড়েছে, বাদশাহী পিঠে, ঝিনুক পিঠে, শিমুল পিঠে, মালপোয়া পিঠে, নকশা পিঠা, রাঙাআলুর পিঠা, গোকুল পিঠা ইত‍্যাদি। পিঠে তৈরিতে ব‍্যবহার করা হয়েছে চালের গুড়ি, নারকেল গুড়ি, ময়দা, সুজি, নতুন গুড়, দুধ, কেশর, এলাচ, লবঙ্গ ইত্যাদি সামগ্রী। মূল্যায়নের নিরিখে পুরস্কার ছাড়াও সবাইকেই স্মারক সম্মানে উৎসাহিত করা হয়।

কোলা গ্রামের কলেজ পড়ুয়া তোর্সা মান্না জানান, কোলাঘাট উৎসব আমাদের কাছে দুর্গাপূজার মত অনুভূতি জাগায়। আমি এবং আমার মা বোন সবাই ভোর রাত থেকে ভেজিটেবল আর্ট এবং পাঠেপুলি বানিয়ে আজকের আয়োজনে অংশ নিয়েছি।
মাড়োবেড়িয়া গ্রামের গৃহবধূ মায়া মাইতি বলেন, সারারাত জেগে এইসব বানিয়েছি। পুরস্কার ছাড়াও এর মাধ্যমে আমরা যে আনন্দ পাই সেটাই বড় পাওনা।

কোলাঘাট উৎসবের পক্ষে সন্দিপ রায় চৌধুরী বলেন, মা মেয়ে সহ সর্বস্তরের মানুষের উৎসাহ উন্মাদনাই আমাদের বেশি করে এই আয়োজনে উৎসাহিত করে। এই দিন উৎসব প্রাঙ্গণ হতে প্রায় সতেরশো দুঃস্থ মানুষের হাতে শীতবস্ত্র তুলে দেওয়া হয়।

নিউজ ফ্রন্ট বাংলার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন।